পল্লী বিদ্যুৎ মিটার আবেদন – আবেদন ফি কত জেনে নিন

পল্লী বিদ্যুৎ মিটার আবেদন – আবেদন ফি কত জেনে নিন

বর্তমান প্রজন্মে বিদ্যুৎ মানুষের মৃত্যুর সঙ্গী হয়ে দাঁড়িয়েছে। বাংলাদেশের প্রায় প্রতিটা ঘরেই এখন বৈদ্যুতিক সংযোগ রয়েছে। অত্যন্ত গরিব পরিবারেও এখন বৈদ্যুতিক সংযোগ দেখা যায়। বৈদ্যুতিক ব্যবস্থা নেই এমন জায়গা খুব কমই পাওয়া যাবে। মূলত বলতে গেলে বিদ্যুৎ ছাড়া মানুষ এখন চলতেই পারে না। কারণ বিদ্যুৎ মানুষের জীবনে খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। মোটামুটি ভাবে দেখতে গেলে প্রায় সব কাজে বিদ্যুতের প্রয়োজন হয়।আর বিদ্যুতের এই প্রয়োজনীয়তা দেখেই পল্লী বিদ্যুৎ অপারেটররা জনগণকে নানা সুবিধা দিয়ে থাকি। যেমন তাদের কাছ থেকে বৈদ্যুতিক সংযোগ নিলে আপনি বিদ্যুতের ভোল্টেজ ভালো পাবেন এবং সব দিক থেকেই সুবিধা গ্রহণ করতে পারবে।এমনকি আপনি আপনার নিত্য প্রয়োজনীয় সকল কাজ খুব সুন্দর ভাবে করতে পারবেন। কোন সমস্যা হবে না।

যদি এই সুন্দর সুবিধাগুলো গ্রহণ করতে চান তাহলে আপনাকে পল্লী বিদ্যুৎ অপারেটরের কাছে পল্লী বিদ্যুৎ মিটারের জন্য আবেদন করতে হবে।অনেকেই আছে যারা দালালের মাধ্যমে পল্লী বিদ্যুৎ মিটার নিয়ে থাকেন তবে আপনি যদি অনলাইনের মাধ্যমে পল্লী বিদ্যুৎ মিটার আবেদন করেন তাহলে আপনার জন্য এটি অত্যন্ত সহজলভ্য হবে। নিচে আমি পল্লী বিদ্যুৎ মিটার অনলাইনে কিভাবে আবেদন করতে হয় দিয়ে দিয়েছি জেনে নিন।

পল্লী বিদ্যুৎ মিটার আবেদন করার নিয়ম

মিনিস্টার এর আবেদন আপনি দুই ভাবে করতে হবে – একটি আপনি সাধারণত দালালের মাধ্যমে করতে পারবেন এবং অন্য উপায়টি হচ্ছে অনলাইনে আবেদন। তবে বেশিরভাগ মানুষই দালালের সাহায্যে পল্লী বিদ্যুৎ মিটার আবেদন করে থাকে। আর এই সুযোগে বিভিন্ন অসাধু দালালরা তাদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায় করে থাকে। কিন্তু আপনি যদি অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করেন তাহলে আপনার অত্যন্ত কম খরচ হবে। আর আপনি নিশ্চিন্তে থাকতে পারবেন। আর তাদের কথা বিবেচনা করি আমি আজকে পল্লী বিদ্যুৎ মিটার অনলাইনে আবেদন করার নিয়ম নিচে দিয়ে দিয়েছি জেনে নিন :-

অনলাইনে পল্লী বিদ্যুৎ মিটার আবেদন করার জন্য আপনাকে প্রথমে পল্লী বিদ্যুৎ অপারেটরের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে । আর এই অফিসিয়াল ওয়েবসাইটটি হলো rebpbs.com . উল্লিখিত ওয়েবসাইটে একটি ফর্ম দেওয়া থাকবে যা পূরণ করার মাধ্যমে আপনি আবেদন করতে পারবেন।

১-ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার পর আপনি আপনার ইন্টারনেট ব্রাউজারে একটি ইন্টারফেস দেখতে পাবেন।

২-এরপর আপনার কম্পিউটার মোবাইল বা ল্যাপটপে আপনি একটি আবেদন লেখা দেখতে পাবেন এবং সেই আবেদন লেখাটিতে ক্লিক করতে হবে।

৩-এরপর একটি ফর্ম চলে আসবে তাতে আপনার এলাকার বিদ্যুৎ অফিসের নামসহ বিভিন্ন কিছু ফর্ম এ দেওয়া থাকবে যা আপনাকে পূরণ করতে হবে।

৪-আবেদন করার সকল তথ্য দিয়ে দিলেই অনলাইনে আবেদন করা সম্পূর্ণ হবে।

পল্লী বিদ্যুৎ মিটার আবেদন ফি কত

অনেকের মনে প্রশ্ন যে পল্লী বিদ্যুৎ মিটার আবেদন ফি কত? আজকে আমি তাদের জন্য জানিয়ে দেবো যে পল্লী বিদ্যুৎ আবেদন ফ্রি কত।এমন অনেক অসাধু মানুষ আছে যাদের কাছে এ সম্পর্কে কোন কিছু জানতে গেলে আপনাকে তারা বলবে কিছু টাকার বিনিময়ে আপনার কাজ সে সম্পাদন করে দিবে। আর এ কথার মাধ্যমে তারা আপনাকে ঠকিয়ে অধিক টাকা নিয়ে নেবে। কিন্তু আপনি যদি অনলাইনে পল্লী বিদ্যুৎ মিটার আবেদন করেন এতে আপনার টাকা খুবই কম লাগবে এবং কোন প্রতারকের শিকার হতে হবে না।যদি আপনি কম খরচে সঠিক উপায়ে পল্লী বিদ্যুৎ মিটার আবেদন করতে চান তাহলে আমার দেওয়া পোস্টটি ভালভাবে পড়ুন। এখন আমি আপনাদেরকে জানিয়ে দেব পল্লী বিদ্যুৎ মিটার আবেদন ফি মূলত কত।

পল্লী বিদ্যুৎ মিটারের আবেদন গ্রহণ করার জন্য ১১৫ টাকা দিতে হবে এবং এক্ষেত্রে আপনাকে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি থেকে একটি রশিদ দেয়া হবে । পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির লোক এসে আপনাদের ঘর ওয়ারিং করবে। অতঃপর আবেদন জমা দেওয়ার পর মিটার পাওয়ার জন্য আপনাকে ৪৫০ টাকা ফি প্রদান করতে হবে।

অর্থাৎ আপনাকে আবেদন জমা দেওয়ার জন্য ১১৫ টাকা এবং মিটার পাওয়ার জন্য 450 টাকা প্রদান করতে হবে।

নতুন বিদ্যুৎ মিটার

কি আছে যারা নতুন বিদ্যুৎ মিটার নিতে চায়। তাদের জন্যই মূলত আজকের এই পোস্টটি করা। আজকের এই পোষ্টের মাধ্যমে আমি নতুন বিদ্যুৎ মিটার নেওয়ার সকল পদ্ধতি আপনাদেরকে জানিয়ে দেবো। আশা করি আমার পোষ্টের দ্বারা আপনি অবশ্যই উপকৃত হবেন।

১- নতুন বিদ্যুৎ মিটার নেওয়ার ক্ষেত্রে আপনাকে প্রথমে উপজেলা বিদ্যুৎ অফিসে আবেদন করতে হবে।

২- এরপর আবেদনের জন্য আপনাকে ক্যাশ শাখায় সমীক্ষা ফি জমা দিতে হবে।

৩- জমা দেয়ার পর সংশ্লিষ্ট অফিস প্রধান ওয়ারিং পরিদর্শক কে সমীক্ষার দায়িত্ব দেবেন এবং সমীক্ষা শেষে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদান এর যথার্থতা পাওয়া গেলে অনুমোদন গ্রহণ করে গ্রাহককে জানানো হবে।

৪- এরপর আপনার ওয়ারিং যথাযথ হয়েছে কিনা তার জন্য পরিদর্শক পরিদর্শন করে রিপোর্ট প্রদান করবেন।

৫- অতঃপর রিপোর্ট যথাযথ থাকলে ক্যাশ শাখায় নিরাপত্তা জামানত জমা করতে হবে।

নতুন বিদ্যুৎ মিটার নিতে আপনার প্রয়োজনীয় ফি লাগবে ১০০ থেকে ৩১২৫ টাকা।

বিদ্যুৎ মিটার নষ্ট হলে করনীয়

অনেকেই আছে যারা বিদ্যুৎ মিটার নষ্ট হলে করনীয় কি এ নিয়ে দ্বিধাদন্দের মধ্যে থাকেন। আর আজকে তাদের দ্বিধাদ্বন্দ দূর করার জন্য আমি তাদেরকে জানিয়ে দেবো যে বিদ্যুৎ মিটার নষ্ট হলে মূলত করণীয় কি হতে পারে। আমি এখানে বিদ্যুৎ মিটার নষ্ট হলে করণীয় কি তা খুব সুন্দর ভাবে উপস্থাপন করে। আপনি যদি আমার দেওয়া পোস্টটি ভালোভাবে পড়েন তাহলে আপনি জানতে পারবেন যে বিদ্যুৎ মিটার নষ্ট হলে করণীয় কি। তাহলে আর দেরি না করে চলুন জেনে নেওয়া যাক বিদ্যুৎ মিটার নষ্ট হলে আপনাকে কি করতে হবে।

আপনার বিদ্যুৎ মিটারটি নষ্ট হলে আপনার প্রথম করণীয় হলো উপজেলা বিদ্যুৎ অফিসে বিষয়টি জানানো। আপনার বিদ্যুৎ মিটারটি সামান্যতম নষ্ট হয়ে থাকলে বিদ্যুৎ অফিসের লোকেরা তা ঠিক করে দিয়ে যাবে। আর যদি বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় তাহলে তারা আপনার বিদ্যুৎ মিটারটি পাল্টিয়ে নতুন মিটার দিয়ে যাবে। তাই বিদ্যুৎ মিটার নষ্ট হলে এ নিয়ে বেশি চিন্তিত হওয়ার কারণ নেই।

Read More

প্রেমের কবিতা -100 টি প্রেমের কবিতা

অনলাইন ইনকাম সাইট – জেনে নিন জনপ্রিয় ১০ টি অনলাইন ইনকাম সাইট এর নাম।

Maimuna Khan

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *