মালয়েশিয়া কলিং ভিসা ২০২৩

মালয়েশিয়া কলিং ভিসা ২০২৩

বর্তমান সময়ে বাংলাদেশ থেকে মালয়েশিয়া যাওয়ার জন্য কলিং ভিসা চালু হয়েছে। আপনি যদি মালয়েশিয়া কলিং ভিসায় যেতে চান তাহলে আজকের এই পোস্টটি আপনার জন্য।

আসসালামু আলাইকুম আমাদের আরও একটি পোস্টে আপনাদের স্বাগতম। আজকের এই পোস্টটিতে আপনারা জানতে চলেছেন মালয়েশিয়া কলিং ভিসা সম্পর্কিত সকল বিষয় সম্পর্কে। কেননা কলিং ভিসা প্রসেসিং, কলিং ভিসার সমস্ত প্রসেস প্রক্রিয়া নিয়ে আজকের এই পোস্টটি সাজানো হয়েছে। তো চলুন দেখে নেওয়া যাক মালয়েশিয়া কলিং ভিসা 2023

মালয়েশিয়ার কলিং ভিসা কি

আপনি যদি মালয়েশিয়ার কলিং ভিসা কি? সে সম্পর্কে না জেনে থাকেন তাহলে সঠিক জায়গায় আছেন। কেননা আজকের এই আর্টিকেলে আপনারা জানতে পারবেন মালয়েশিয়ার কলিং ভিসা কি। চলুন দেখে নেওয়া যাক কলিং ভিসা কি?

মালোশিয়ার কলিং ভিসা বলতে বোঝানো হয় ভিন্ন দেশ থেকে মালয়েশিয়া গিয়ে যেকোনো পাম বাগান, কনস্ট্রাকশন, মার্কেট, ফ্যাক্টরি ইত্যাদি গুলোতে শ্রমিক হিসেবে কাজ করা। আপনি ইচ্ছে করলে যে কোন দেশ থেকে মালয়েশিয়া গিয়ে এইসব কাজ করে থাকেন ইনকাম করতে পারেন।

মালয়েশিয়া ভিসার দাম কত

আপনি হয়তোবা মালয়েশিয়া যেতে চাচ্ছেন কিন্তু মালয়েশিয়ার ভিসার দাম কত বা মালয়েশিয়া যেতে কত টাকা লাগে এসব বিষয়ে আপনার মনে প্রশ্ন জাগে, আর সব বিষয়ে প্রশ্ন জাগতে পারে এটা অস্বাভাবিক কিছু নয়। তাই আজকের এই পোস্টটিতে মালয়েশিয়া যেতে কত টাকা লাগে কোথায় কি কি খরচ করতে হয় সে সম্পর্কিত সকল তথ্য তুলে ধরব।

মালয়েশিয়া ভিসার দাম কত? এই প্রশ্নটি অনেকের মনে ঘুরপাক খাচ্ছে। যারা মালয়েশিয়া যেতে চান কাজ করার উদ্দেশ্যে বা ভ্রমণ করার উদ্দেশ্যে আপনাদের জন্য মালয়েশিয়া যেতে খরচ পড়বে তিন থেকে চার লক্ষ টাকা।

তো চলুন দেখে নেয়া যাক, কলিং ভিসা পাওয়ার জন্য মোট খরচ কত হবে:

  • ভিসা প্রসেসিং ফি 1,60,000 টাকা।
  • ভিসা ক্রয় বাবদ খরচ 90,000 টাকা।
  • বিমান টিকেট ফি 35,000 টাকা।
  • এজেন্সির লাভ অংশ 20,000 টাকা।
  • অন্যান্য খরচ 5,000 টাকা।
  • সর্বমোট খরচ 310,000 টাকা।

এখানে যে হিসাবটি দেওয়া হলো সেটি গড় আকারে দেওয়া হয়েছে। তবে এ হিসাব সময়ের ব্যবধানে কম বেশি হতে পারে।

কলিং ভিসা কি কাজ

আপনারা যদি কলিং ভিসার কি কাজ সে সম্পর্কে না জেনে থাকেন তাহলে সঠিক জায়গায় আছেন। তো চলুন দেখে নেয়া যাক কলিং ভিসা কি কাজ? কলিং ভিসার কাজ হল যেকোনো পাম বাগান, কনস্ট্রাকশন, মার্কেট, ফ্যাক্টরির শ্রমিক হিসেবে কাজ করা ইত্যাদি।

বাংলাদেশ হতে মালয়েশিয়া কলিং ভিসা নিয়োগের ক্ষেত্রে এখন পর্যন্ত কোন প্রকার হ্যাঁ বা না সাড়া পাওয়া যায়নি। 2021 সালের ডিসেম্বর মাসে কুয়ালালামপুর এ উভয় দেশের মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়ে যাওয়ার পরে বাংলাদেশের যুবকরা ক্রমশ হতাশায় পর্যবসিত হচ্ছে।

অপরদিকে কর্মী নিয়োগ ইস্যুতে মালয়েশিয়া এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীদের ইন্দোনেশিয়া এবং ভারত গমন করার বার্তা দিয়েছে। তারা দ্রুত এ সমস্যার সমাধান করতে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রীকে অনুরোধ করেছে।

মালয়েশিয়া কলিং ভিসা এজেন্সি

সংশ্লিষ্ট সূত্রের মাধ্যমে জানা গিয়েছে জি টু জি প্লাস এর সময় অতিরিক্ত অভিবাসন, ব্যয়ের ইস্যুটি খোদ মাহাথির সরকার উপস্থাপন করে, পরবর্তী সরকারের সিদ্ধান্ত ভুল প্রমাণ করার প্রহসনে। তবে খোদ মাহাথির সরকারের মন্ত্রী সেই দেশের পার্লামেন্ট ঘোষণা করে যে, সিস্টেম কোন সমস্যা নেই এবং কোন দুর্নীতি পাওয়া যায় নাই।

মালয়েশিয়ার মানব সম্পন মন্ত্রী দাতক এটি জানিয়ে দেন যে, মালয়েশিয়ার কোম্পানি বা মালিকদের কলিং ভিসায় বিদেশী কর্মী নিয়োগ এর জন্য অনলাইন আবেদন করা যাবে। যা চলতি 2023 সালের জুন মাস থেকেই। তিনি আরো বলেন নিয়োগ কারীদের পরামর্শ দিতে চাই যে, আবেদন সিস্টেম দ্রুত করার উদ্দেশ্যে কোন দালাল বা তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে কোন টাকা লেনদেন করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

মালয়েশিয়া ভিসা আবেদন ফরম

আপনি যদি মালয়েশিয়া কলিং ভিসায় যেতে চান তাহলে আপনাকে অনলাইনের মাধ্যমে ভিসার আবেদন করতে হবে। আপনি যদি অনলাইনের মাধ্যমে মালয়েশিয়া কলিং ভিসা আবেদন করতে চান তাহলে আপনার যা যা করতে হবে তা সুন্দরভাবে তুলে ধরছি। আশা করি বুঝতে কোন সমস্যা হবে না।

আপনি যদি অনলাইনের মাধ্যমে মালয়েশিয়া কলিং ভিসার আবেদন করতে চান তাহলে https://www.visasmalaysia.com এই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে।

এরপর সেখানে আপনার নির্বাচিত মালয়েশিয়া কলিং ভিসার জন্য আবেদন ফরম পেয়ে যাবেন। এই ফর্মটি সুন্দরভাবে ভরাট করে নিতে হবে তারপর Next অপশনে ক্লিক করবেন। তারপরে ভিসা অফিসে যোগাযোগ করে আপনি আপনার বিস্তারিত তথ্য জেনে নিতে পারবেন।

মালয়েশিয়া কলিং ভিসা মেডিকেল

বাংলাদেশের হাইকোর্টে একটিভেট করে বলা হয়েছে যে, সরকার 10 টি রিক্রুটিং এজেন্সির মাধ্যমে, মালয়েশিয়া কর্মী প্রবেশ করাবে। এছাড়া অন্যান্য রিক্রুটিং এজেন্সির অধিকার খবর করবে।

অন্যদিকে বিএমআইটি বলেছে জি টু জি প্লাস প্রক্রিয়ায় বাংলাদেশের ৩ শতাধিক রিক্রুটিং এজেন্সি মালয়েশিয়া কর্মী প্রবেশ করেছে। হাইকোর্টের রিটের জবাব দিতে মন্ত্রণালয় ভিন্ন মন্ত্রণালয় একটি অনুসন্ধান কমিটি করা হয়।

শেষ কথা: পোস্টটি শেষ পর্যন্ত পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

Maimuna Khan

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *