হতাশা নিয়ে উক্তি

হতাশা নিয়ে উক্তি

আসসালামু আলাইকুম, আশা করি আপনারা সবাই অনেক ভাল আছেন। আজকে আমরা আপনাদের জন্য নতুন এক অন্য ধরনের পোস্ট নিয়ে চলে এলাম। আজ আমরা আপনাদের সামনে দেখাতে চলেছি হতাশা নিয়ে বিভিন্ন উক্তি সমূহ। তাই আপনিও যদি হতাশায় ভুগতে থাকেন তবে অবশ্যই এই সকল উক্তি গুলো পড়ে নেবেন। তাহলে আশা করি আপনি অনেক উপকৃত হবেন।

হতাশা হচ্ছে এমন একটি বিষয় যা মানুষকে দুর্বল করে দেয়। মানুষের মনোবল কে সে একরকম দূর করে দেয়। যার ফলে মানুষ বড় কিছু করার ক্ষমতা থেকে বঞ্চিত হয়। আপনি যদি জীবনে হতাশাগ্রস্ত থাকেন তবে জীবনে কখনোই কোনো বড় কিছু করতে পারবেন না। তাই আমরা আপনাদের জন্য হতাশা নিয়ে বিভিন্ন রকমের উক্তি বিষয়ক লেখা নিয়ে চলে এলাম।

হতাশা নিয়ে উক্তি

হতাশা হচ্ছে এমন একটি বিষয় যার জন্য আপনি কখনোই জীবনে সফলতা আনতে পারবেন না। সফলতা আনতে হলে অবশ্যই আপনাকে হতাশা থেকে মুক্তি পেতে হবে। তাই হতাশা বিষয়ক বিভিন্ন লেখা পড়ে আপনি উপকৃত হতে পারেন। এর ফলে আপনি হতাশা থেকে মুক্তি পেতে পারেন। তাই আমরা আজকে আপনাদের সামনে হতাশা নিয়ে সেই সকল লেখাগুলো তুলে ধরব।

 

আমি বলব সব সময় নিজের জীবনের সিদ্ধান্ত নিজেই নেবে,

কারণ যে নিজের সিদ্ধান্ত নিতে পারে না সে একদিন হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়বে।

 

এই জীবনটা হচ্ছে উপভোগ করার জন্য এবং সফলতা অর্জন করার জন্য

হতাশাগ্রস্থ হয়ে জীবনটাকে নষ্ট করার বা ধ্বংস করার জন্য নয়।

 

হতাশা কখনোই কাউকে সফলতা এনে দিতে পারে না,

বরং তার ভিতরে সফলতার বীজ থাকে তাকে নষ্ট করে দেয়।

 

যে সবসময় হতাশাগ্রস্ত থাকে, সে কখনোই নিজেকে ভালবাসতে পারে না

কারণ কেউ নিজেকে ভালবাসলে কখনো এই হতাশাগ্রস্ত থাকতে পারবে না।

 

হতাশা হচ্ছে এক ধরনের মানসিক রোগ বলা যায়,

এটি নিজের জীবনের ওপর একটি জুলুম করা মাত্র।

 

হতাশা নিয়ে বিভিন্ন মনীষীদের বাণী

এ পৃথিবীতে যারা সফল হয়েছে তারা সকলেই হতাশাকে দূরে রাখতে বলেছে। কারণ হতাশ হলে কখনোই আপনি কিছু করতে পারবেন না। আপনি যদি জীবনে সফল হতে চান তবে অবশ্যই হতাশাকে দূরে রাখুন। এ বিষয়ে বিভিন্ন মনীষীদের বাণী দিয়েছেন। সেই সকল বাণী গুলি এবার আপনাদের সামনে আমরা তুলে ধরব।

Link – সত্য কথা নিয়ে উক্তি , স্ট্যাটাস ও কবিতা

 

বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বলেছেন,

হতাশা হচ্ছে এক ধরনের বিলাসিতা, সেই জায়গাটি আছে থেকে দখল করুক কাজ শেষ করার ক্লান্তি।

 

বিখ্যাত মনীষী উয়িলিয়াম বলেছেন,

পৃথিবীতে এখনো এমন কোন হতাশা আসেনি যা আশা-ভরসা কে পরাজিত করতে পারে।

 

জর্জ গ্রেস বলেছেন,

কারো সফলতা দেখে ঈর্ষান্বিত হয়ে গ্রস্ত হইও না, তা থেকে শিক্ষা নাও অবশ্যই তুমি সফল হবে।

 

জীবনের হতাশা নিয়ে উক্তি

মানুষ জীবনে বিভিন্ন ধরনের হতাশায় ভুগতে থাকে। তার মধ্যে সবচেয়ে বড় হতাশার কারণ হচ্ছে সফলতা না হওয়া। যখন মানুষ সকল কাজে সফলতা পায় না তখন মানুষ হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েন। কিন্তু একজন সফল মানুষের সবচেয়ে বড় উত্তম গুন হলো সে ধৈর্য ধারণ করে। সে জীবনে কখনো ধৈর্য হারা হয় না। তাই সে সবসময় সফল।

তাই আমরা যদি হতাশাগ্রস্ত হয়ে তবে কখনোই হতাশার কারণে সফল হতে পারব না। তাই অবশ্যই সফল হতে হলে হতাশাকে দূরে রেখে ধৈর্য ধারণ করতে হবে। ধৈর্য ধারণ করে নিয়মিত কাজ করে গেলে আপনি অবশ্যই একদিন সফল হবেনি। জীবনের বিভিন্ন বাতাসা জনিত বিষয় নিয়ে চলে এলাম এবার আপনাদের সামনে। সেগুলো হলো:

 

হতাশা হচ্ছে এমন একটি বিষয় যা ধারণ করতে বেশি সময় লাগে না,

কিন্তু এই হতাশা কাটিয়ে উঠতে অনেক অনেক সময় লেগে যায়।

 

হতাশা হচ্ছে এক ধরনের অলসতা,

যে হতাশ সে অবশ্যই একজন বড় ধরনের অলস।

আজ থেকে সেই হতাশার জায়গা দখল করুক নিয়মিত পরিশ্রম,

দেখবেন একদিন আপনি অবশ্যই সফল হবেন।

 

কোন কিছুর আশা কোনদিন তোমাকে ছাড়া না,

তুমি হতাশ হয়ে সে আশা-ভরসা কে ছেড়ে দাও।

যেদিন তুমি আশাকে জোরালো করতে পারবে সেদিনই তুমি সফল হবে।

 

হতাশা নিয়ে ইসলামিক উক্তি

হতাশা হচ্ছে মানুষের জীবনের শান্তির পরিপন্থী। কেউ হতাশ হলে জীবনে কখনো শান্তি লাভ করতে পারবে না। কারণ হতাশা হচ্ছে শান্তির বিপরীত। ইসলাম হচ্ছে শান্তির ধর্ম। তাই ইসলামের শান্তি রক্ষা করার জন্য হতাশাকে মানা করা হয়েছে। তাই আপনাদের উচিত কখনোই হতাশাগ্রস্ত না হওয়া। তাই এবার আমরা হতাশা নিয়ে বিভিন্ন ইসলামিক উক্তি গুলো আপনাদের সামনে ব্যাখ্যা করতে চলেছি।

 

সূরা আর রুম (আয়াতঃ ৩৬) এ বলা হয়েছে,

আর যখন আমি মানুষকে রহমত এর স্বাদ আস্বাদন করাই, তারা তাতে আনন্দিত হয় এবং তাদের কৃতকর্মের ফলে যদি তাদেরকে কোন দুর্দশা পায় তবে তারা হতাশ হয়ে পড়ে ।

 

সুরা ১৭ ইসরা, আয়াত: ৮৩ এ বলা হয়েছে,

আমি যখন মানুষকে নিয়ামত দান করি, তখন সে মুখ ফিরিয়ে নেয় ও পাশ কাটিয়ে যায়। আর যদি কোনো অনিষ্ট তাকে স্পর্শ করে, তখন সে হতাশ হয়ে পড়ে।

 

সুরা ৩৯ জুমার, আয়াত: ৫৩ এ বলা হয়েছে,

বলো, হে আমার বান্দাগণ! তোমরা যারা নিজেদের প্রতি অবিচার করেছ, তোমরা আল্লাহর অনুগ্রহ থেকে নিরাশ হয়ো না। নিশ্চয়ই আল্লাহ সকল গুনাহ ক্ষমা করে দেন। নিশ্চয় তিনি অতি ক্ষমাশীল পরম দয়ালু।

 

সুরা ৩ আলে ইমরান, আয়াত: ২০০ এ বলা হয়েছে,

হে ইমানদারগণ! তোমরা ধৈর্য ধারণ করো এবং দৃঢ়তা অবলম্বন করো আর আল্লাহকে ভয় করো, যাতে তোমরা সফল হতে পারো।

 

আশা করি আপনারা সবাই পোস্টটি পড়ে অনেক উপকৃত হবেন। লেখাটি ভালো লাগলে অবশ্যই বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করে দেবে। আর এ ধরনের ইউনিক লেখা নিয়মিত দেখতে আমাদের সঙ্গেই থাকুন। কারণ আমরা এধরণের সুন্দর সুন্দর লেখাগুলো আপনাদের উপহার দিয়ে থাকি। এতক্ষন আমাদের সঙ্গে থাকার জন্য আপনাকে আমাদের পক্ষ থেকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

আরো পড়ুন: মৃত্যু নিয়ে কিছু কবিতা , উক্তি, স্ট্যাটাস

সুখ নিয়ে উক্তি, ছন্দ স্ট্যাটাস

Maimuna Khan

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *