ফ্রিল্যান্সিং কি হালাল – ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখব

ফ্রিল্যান্সিং কি হালাল – ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখব

বর্তমানে ফ্রিল্যান্সিং যুবকদের কাছে এক জনপ্রিয় পেশা। অনেক যুবক ফ্রিল্যান্সিং করে মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা উপার্জন করে। ফ্রিল্যান্সিং হচ্ছে একটি মুক্ত পেশা। এখানে আপনি আপনার ইচ্ছামত কাজ করতে পারবেন। আপনি যদি বেশি টাকা উপার্জন করতে চান তাহলে আপনার বেশি পরিশ্রম করা দরকার। আর আপনি যদি কম টাকা উপার্জন করতে চান তাহলে আপনার অল্প পরিশ্রম করলেই চলবে। আপনি আপনার ইচ্ছামত কাজ করতে পারবেন এখানে। তাই বেশিরভাগ মানুষ ফ্রিল্যান্সিংকে তাদের জব হিসেবে বেছে নেয়।

বাংলাদেশের অসংখ্য মানুষ বর্তমানে ফ্রিল্যান্সিং করছে। ফ্রিল্যান্সিং অনেক ধরনের হয়। কেউ ব্লগিং করে। আবার কেউ ইউটিউবিং করে। কেউ আবার ফেসবুক মার্কেটিং করে টাকা কামাই। এখানে ফ্রিল্যান্সিংকে একেকজন একেকভাবে ব্যবহার করছে। অনেকেই আবার আর্টিকেল রাইটিং করে অনেক টাকা উপার্জন করে। কেউ আবার ফাইবার অ্যাকাউন্টে কাজ করে লোগো ডিজাইন করে অনেক টাকা উপার্জন করে। চলুন এবার ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে একটু জানি।

ফ্রিল্যান্সিং কি

যে উপায়ে ঘরে বসে বাইরের দেশের কাজ করে অর্থ উপার্জন করা যায় তাকে ফ্রিল্যান্সিং বলে। আবার মুক্ত পেশা কেউ ফ্রিল্যান্সিং বলে। ফ্রিল্যান্সিং এর অর্থ হলো ঘরে বসে অর্থ উপার্জন করা। সেটা হতে পারে নিজ দেশের কাজ করে অথবা হতে পারে অন্য দেশের কাজ করে।

ফ্রিল্যান্সিং কি হালাল

পরিশ্রম করে অর্থ উপার্জন করা অবশ্যই হালাল। তবে আপনি যে জায়গা থেকে অর্থ উপার্জন করতেছেন সেটা যেন সঠিক হয়। ইসলাম আজেবাজে ছবি ও ভিডিও নিষেধ করেছে। এখন আপনি যদি এগুলো নিয়ে কাজ করেন তাহলে অবশ্যই আপনার উপার্জিত টাকা হারাম হবে। এক্ষেত্রে আপনার ফ্রিল্যান্সিং হারাম হয়ে যাবে। আর যদি আপনি কোন আর্টিকেল রাইটিং করে টাকা উপার্জন করেন সে ক্ষেত্রে আপনার ইনকাম হালাল হবে।

এছাড়াও আপনি যদি কোন একটা পত্রিকা ওয়েবসাইট নিয়ে কাজ করেন তবে আপনার ইনকাম হালাল হবে। দেখা যাচ্ছে যে আপনার ইনকাম নির্ভর করবে সম্পূর্ণই আপনার নিজের উপর। আর হালাল-হারাম নির্ভর করবে আপনার উপর। আপনি যদি হারাম পন্থা ব্যবহার করেন তাহলে আপনার ইনকাম হারাম হবে।

ডক্টর জাকির নায়েক এর বক্তব্য: ফ্রিল্যান্সিং এর ইনকাম হালাল না হারাম সেটা সম্পূর্ণ আপনার উপর নির্ভর করবে। আপনি যদি খারাপ পথ বেছে নেন তাহলে আপনার ইনকাম হারাম হবে। আর আপনি যদি ভাল পথ বেছে নেন তাহলে আপনার ইনকাম হালাল হবে। ধরেন আপনি কোন কোম্পানির লোগো ডিজাইন করে দিলেন। এক্ষেত্রে আপনার উপার্জিত টাকা হালাল হবে।

আবার আপনি যদি কোন বাজে ভিডিও এর মার্কেটিং করে দেন তবে সেক্ষেত্রে আপনার উপার্জিত টাকা হারাম হয়ে যাবে। আশাকরি হালাল-হারামের বিষয়টা বুঝতে পেরেছেন। তাই টাকা উপার্জনের ক্ষেত্রে অবশ্যই হারামকে বর্জন করবেন। কেননা যেটা আল্লাহ তায়ালার পছন্দ না সেটা আপনার জন্য খারাপ বয়ে আনবে।

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখব

ফ্রিল্যান্সিং শেখার অনেক পদ্ধতি রয়েছে। আবার অনেক ক্যাটাগরির ফ্রিল্যান্সিং রয়েছে। ফ্রিল্যান্সিং শেখার জন্য একজন শিক্ষক দরকার। একজন ভালো শিক্ষক এর কাছে যদি আপনি শিক্ষা নিতে পারেন তাহলে খুব দ্রুত সফলতা অর্জন করতে পারবেন। এছাড়াও ফ্রিল্যান্সিংয়ের অনেক কোর্স রয়েছে। আপনি যদি কোর্স গুলো কমপ্লিট করতে পারেন তাহলে আপনার ফ্রিল্যান্সিং শেখা কমপ্লিট হবে।

তবে ইউটিউবে অনেক কোর্স রয়েছে। এর মধ্যে কিছু কোর্স ফ্রী। আবার কিছু কো ভিলেন সিংর্স  রয়েছে যেগুলো টাকা দিয়ে কিনে নিতে হয়। আপনি যদি ফ্রি কোর্স দেখেন তাহলে অর্ধেক কাজ শিখতে পারবেন। আর আপনি যদি টাকা দিয়ে কেনা কোর্স ভিডিও দেখেন তাহলে আপনি পুরোপুরি কাজ শিখতে পারবেন। আবার আপনি কোন প্রতিষ্ঠানে গিয়েও কাজ শিখতে পারেন।

ফ্রিল্যান্সিং কোর্স

ফ্রিল্যান্সিং শেখানোর জন্য অনেক প্রতিষ্ঠান রয়েছে। আপনি চাইলে সেই সকল প্রতিষ্ঠান থেকে ফ্রিল্যান্সিং শিখে নিতে পারেন। ইউটিউবে অনেক পেইড কোর্স রয়েছে যেগুলো থেকে আপনি ফ্রিল্যান্সিং শিখতে পারেন। তবে পেইড কোর্স থেকে ফ্রিল্যান্সিং শেখা সবচেয়ে ভালো। আপনি যে কোন সময় আপনার কোন সমস্যা হলে পেইড কোর্স থেকে দেখে নিতে পারবেন।

আমি আপনাদের সাজেস্ট করব যে আপনারা পেইড কোর্স থেকে ফ্রিল্যান্সিং শিখুন। এতে করে আপনি খুব দ্রুত সফলতা অর্জন করতে পারবেন। এবং আপনার সমস্যা গুলি খুব দ্রুত সমাধান করতে পারবেন। যার ফলে আপনি খুব দ্রুত টাকা উপার্জন করতে পারবেন।

Read More

ফ্রী এসএমএস পাঠানোর অ্যাপ ডাউনলোড ও এসএমএস পাঠানোর নিয়ম

এফিলিয়েট মার্কেটিং কি এবং কিভাবে এটি থেকে টাকা আয় করা যায়?

Maimuna Khan

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *