অশ্বগন্ধার উপকারিতা ও অপকারিতা

অশ্বগন্ধার উপকারিতা ও অপকারিতা

অশ্বগন্ধার উপকারিতা- অশ্বগন্ধা হচ্ছে একটি প্রাচীন ও ভেষজ খুবই উপকারী একটি ঔষধি গাছ। এটি বেশিরভাগই প্রাচীন ও বিভিন্ন আয়ুর্বেদী ওষুধ তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। তাই ঔষধি গাছ সম্পর্কে মানুষ অনেক কমই জানে কিন্তু সবাই না কচু গাছের নাম শুনেছে অবশ্যই। আপনারা হয়তো অনেকেই জানতে চেয়েছেন যে এই কাছের উপকারিতা গুলো কি কি। তাই আজ আমরা আপনাকে এই গাছের সম্পর্কে সব কিছু জানাতে চলেছি।

অশ্বগন্ধা হচ্ছে এমন একটি গাছ যে গাছের উপকারিতার কোন শেষ নেই। এটি মানুষের প্রতি ক্ষেত্রেই খুবই কাজে লাগে। তাই আপনি চাইলে এই গাছের উপকারিতা জেনে সেই গাছটি আপনি আপনার জন্য যদি ভালো হয় তবে আপনি খেতে পারেন। এই গাছের উপকারিতা সম্পর্কে জানতে হলে আপনাকে অনেক বিষয়ে জানতে হবে। অশ্বগন্ধার উপকারিতা এক বিশাল সিরিয়াল। এর উপকারিতা সম্পর্কে আপনাদেরকে বলে শেষ করা সম্ভব হবে না। তো আর দেরি না করে আমরা চলুন এর উপকারিতা গুলো জানতে চলে যাই।

অশ্বগন্ধা গাছ কি?

আপনি যদি প্রাচীন চিকিৎসা সম্পর্কে না জেনে থাকেন তবে আপনি অবশ্যই অশ্বগন্ধা গাছের নাম শুনেছেন। কেননা অশ্বগন্ধা হচ্ছে এমন একটি গাছ যা প্রাচীন চিকিৎসা ও আয়ুর্বেদ শাস্ত্রে খুবই প্রয়োজনীয় একটি গাছ। প্রাচীন আয়ুর্বেদ চিকিৎসা ঔষধি হিসেবে ব্যবহার করতো।

অশ্বগন্ধা গাছটির নামকরণ করা হয়েছে আসলে এর শেকড় থেকে। এ গাছটি সে কোরিয়ের নামের প্রধান উপাদান হিসেবে কাজ করে। একটু বিভিন্ন খুব সুন্দর একটা গন্ধ আছে এবং এটি আসে এর শেকড় থেকে। অশ্বগন্ধা গাছের শেকড় দেখতে অনেকটা ঘোড়ার মত। যার কারণে অশ্বগন্ধা গাছের নাম দেয়া হয়েছে ঘোড়ার সাথে তুলনা করে অশ্ব এবং এর গন্ধ আসছে বলে এর নাম দেয়া হয়েছে অশ্বগন্ধা।

এই গাছটি আসলে মানসিক চাপ থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য সবচেয়ে উপকারী একটি ঔষধি গাছ। এই গাছটিকে বিভিন্ন চিকিৎসকরা মানুষের মানসিক চিকিৎসার জন্য ব্যবহার করে থাকে।

অশ্বগন্ধা গাছের ছবি

আমরা অনেকেই অশ্বগন্ধা গাছ চিনি না। তাই আমরা অনেক সময় অশ্বগন্ধা গাছের ছবি লিখে সার্চ করি। আপনি যদি অশ্বগন্ধা কাজ না জেনে থাকেন তবে আপনি এখানে অশ্বগন্ধা গাছের ছবি দেখতে পারেন। অশ্বগন্ধা গাছ একটি খুবই উপকারী গাছ যা আমাদের আশেপাশেই জন্ম নিয়ে থাকে।

অশ্বগন্ধা গাছের ছবি

অশ্বগন্ধার উপকারিতা

অশ্বগন্ধার উপকারিতা অনেক বিশাল একটি কথা। কারণে গাছের উপকারিতা খুঁজতে গেলে হাজার থেকে হাজার পর্যন্ত পাওয়া যাবে। তাই আমরা সকল উপকারিতা সম্পর্কে বলতে পারব না এই আর্টিকেলটিতে। কিন্তু তারপরও সবচেয়ে প্রধান প্রধান যে সকল কাজে ব্যবহৃত হয় উপকার আপনাদেরকে জানাবো। তো আর দেরি না করে চলুন জেনে নেয়া যাক অশ্বগন্ধা গাছের উপকারিতা গুলো:

অনিদ্রা ও মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণে

অনেক রাতে ঘুম হয় খুব কম এবং মানসিক চাপ থাকে মাথায়। যার কারণে শান্তিতে সময় কাটানো যায় না। এ সময় আমরা অনেকে খুঁজে থাকে কীভাবে আমাদের রাতের ঘুমটা ভালো ভাবে করা যায়। মানসিক চাপ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। তাদের জন্য অশ্বগন্ধা গাছটি খুবই একটি উপকারী গাছ।

অশ্বগন্ধা গাছটি আপনার মাথায় অনেক আরাম দেয়। স্নায়তন্ত্র কে ছবি ঠান্ডা করে। এর ফলে আপনি খুবই আরামে ঘুমাতে পারবেন। এছাড়াও এই গাছটি স্নায়ুতন্ত্রের উপর কাজ করে আপনাকে মানসিক প্রশান্তি দেয়। এছাড়াও এই গাছটি মানুষের স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধিতে অনেক সাহায্য করে। এর ফলে আপনার স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি পায় এবং ঘুম ভালো হয় এছাড়াও আপনি মানসিক চাপ থেকে শান্তি পাবেন।

ক্যান্সার রোগ প্রতিরোধে

ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে অশ্বগন্ধা গাছ একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। চিকিৎসকদের মতে ক্যান্সার হলে যাদেরকে কেমোথেরাপি দেওয়া হয় সেসকল রোগীদেরকে অশ্বগন্ধা খাইয়ে অনেকটা উন্নতি করা যায়। কেমোথেরাপি দিলে শরীরের প্রচুর ক্ষতি হয় সেই সকল ক্ষতি সেসকল ক্ষতি অনেকটাই লাঘব হয় এই অশ্বগন্ধা গাছের কারণে।

ডায়াবেটিসের সমস্যায়

ডায়াবেটিস রোগ নিয়ন্ত্রণে আনতে ভালো ভূমিকা পালন করে। অশ্বগন্ধা গাছের পাতা এবং সে কোন উপাদান থাকে যা আপনার শরীরে ইনসুলিন বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে। এর ফলে আপনার ডায়াবেটিস এর পরিমাণ কমে আসবে। কেননা শরীরে ইনসুলিন এর অভাব হলেই ডায়াবেটিস সমস্যা দেখা দেয় শরীরে। তাই ইনসুলিন যদি শরীরের বৃদ্ধি পায় তবে আপনার শারীরিক সমস্যার সমাধান হতে পারে।

ডায়াবেটিস কমানোর উপায়

যৌনক্ষমতা বাড়াতে

অশ্বগন্ধা গাছ মানুষের শরীরে ইস্ট্রোজেন ও প্রজেস্টেরন হরমোনের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। এছাড়াও বিভিন্ন ধরনের শরীরবৃত্তীয় কাজ অংশগ্রহণকারী সকল হরমোনগুলো কে কাজ করতে সহায়তা দেয় এবং হরমোন গুলোকে বৃদ্ধি করে। এর ফলে আপনার যৌন সক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে।

থাইরয়েড সমস্যার সমাধানে

অনেকের শরীরে থাইরয়েড সমস্যার রয়েছে। শরীরে থাইরয়েড হরমোন কম হলে বা থাইরয়েড হরমোনের অভাব দেখা দিলে তাদের শরীরে থাইরয়েড সমস্যার সৃষ্টি হয়। থাইরয়েড সমস্যা সমাধানের সবচেয়ে উপকারী একটি পন্থা হচ্ছে এই অশ্বগন্ধা গাছ।

রক্ত চলাচল নিয়ন্ত্রণে

মানুষের দেহের রক্ত চলাচল নিয়ন্ত্রণে অশ্বগন্ধা গাছ খুবই ভাল একটি ভূমিকা পালন করে। অশ্বগন্ধা গাছ মানুষের হৃদপিন্ডের হৃদস্পন্দন কে নিয়ন্ত্রণ করে। এর ফলে মানুষের শরীরে রক্ত চলাচল খুবই ভালভাবে করতে পারে। এছাড়াও সোহেলের কোলেস্টরেল এর পরিমানও অশ্বগন্ধা গাছ নিয়ন্ত্রণ করে।

বিভিন্ন রকমের রোগ প্রতিরোধে

সুগন্ধা গাছ মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে খুবই উপকারী একটি ঔষধ। অশ্বগন্ধা গাছ মানুষের শরীরের বিভিন্ন অসুখ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। মানুষের শরীরের সকল অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট কে কাজ করতে সহায়তা করে। এর ফলে মানুষ প্রতিরোধ ক্ষমতা আরও বেশি লাভ করে।

চুল ও ত্বকের যত্নে অশ্বগন্ধা

অশ্বগন্ধা গাছ মানুষের চুল পড়া কমাতে অনেক সহায়তা করে। অশ্বগন্ধা গাছ মানুষের শরীরের চুলের গোড়া শক্ত ও মজবুত করে। এর ফলে মানুষের আগেই চুল পড়ে যাওয়ার ঝরে পড়া বন্ধ করে।

এছাড়াও অশ্বগন্ধা গাছ নিয়মিত সেবনে আপনার যৌবন বৃদ্ধি পায়। যদিও বাসক গাছের পড়লে আপনি সারা জীবন যৌবন থাকতে পারবেন না। তবুও অশ্বগন্ধা গাছ ব্যবহারের ফলে আপনি দ্রুত বার্ধক্য লাভ করবেন না এবং আপনার শরীরের ত্বক দ্রুত ভাজ পরবেনা।

এমনকি সাপের কামড়ে অশ্বগন্ধা গাছ একটি কার্যকরী ঔষধ। যদিও বা আগে সাপের কামড়ে অশ্বগন্ধা গাছ ব্যবহার করা হতো। তবে বর্তমানে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া সাপে কামড় দিলে অশ্বগন্ধা গাছ ব্যবহার করা উচিত নয়। চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়ার পর তারপর যা বলে সেটা করা উচিত । চিকিৎসকের পরামর্শমতো ওষুধ খাওয়া উচিত।

মেয়েদের জন্য অশ্বগন্ধার উপকারিতা

অশ্বগন্ধা গাছ মেয়েদের জন্য খুবই উপকারী একটি গাছ। অশ্বগন্ধা গাছ মেয়েদের শরীরের প্রোজেস্টেরন হরমোন বৃদ্ধি করে। এর ফলে মেয়েদের যৌন ক্ষমতা বা যৌন আকাঙ্ক্ষা বৃদ্ধি পায়। এছাড়াও অশ্বগন্ধা মাথার চুল শক্ত করে যার ফলে মেয়েদের চুল ঝরে পড়া বন্ধ হয়।

মেয়েদের শরীরের ত্বক অল্প বয়সেই ভাজপাড়া কমায় অশ্বগন্ধা। অশ্বগন্ধা গাছ আপনার যৌবন দীর্ঘদিন ধরে রাখে। এর ফলে আপনি দেখতে অনেক সুন্দর থাকবেন অনেক দিন। অশ্বগন্ধা গাছের কারণে দ্রুত বার্ধক্য আসে না বা দ্রুত বয়স্ক ভাবনা চলে আসে না।

অশ্বগন্ধার অপকারিতা ক্ষতিকারক দিক

সব জিনিসের যেমন উপকারিতা রয়েছে তেমনি তার কিছু না কিছু সাইডএফেক্ট বা ক্ষতিকারক দিক রয়েছে। যদিও এটি একটি ঔষধি গাছ এবং আমরা জানি প্রাকৃতিক ভাবে সকল গাছের উপকারিতা। তবুও অশ্বগন্ধা গাছের কিছু উপকারিতা বা ক্ষতিকর দিক রয়েছে। অশ্বগন্ধা গাছের উপকারী দিকগুলো হলো:

  • একটানা দীর্ঘদিন অশ্বগন্ধা সেবন আপনার জন্য একটি বড় বিপর্যয় নিয়ে আসতে পারে। কেননা অশ্বগন্ধা দীর্ঘদিন খেলে আপনার পেটের সমস্যা ও গ্যাস্টিক এছাড়া বিভিন্ন ধরনের দীর্ঘমেয়াদি সমস্যা হতে পারে। তাই দীর্ঘদিন ধরে অশ্বগন্ধা খাওয়া উচিত নয়।
  • গর্ভবতী মহিলাদের অশ্বগন্ধা গাছ ঔষধি হিসেবে খাওয়া উচিত নয়। এতে করে নির্দিষ্ট সময়ের পূর্বে গর্ভপাত হতে পারে।
  • এটি রক্ত পাতলা করতে সহায়তা করে। ফলে আপনার শরীরে কোথাও কেটে গেলে প্রচুর রক্তপাত হতে পারে। এজন্য অতিরিক্ত অশ্বগন্ধা সেবন করা উচিত নয় এর ফলে আপনার শরীরে রক্ত পাতলা হয়ে যেতে পারে।
  • অশ্বগন্ধা ঘুম ভালো করে। তাই অশ্বগন্ধা খাওয়ার সময় পাশাপাশি ঘুমের ওষুধ খাওয়া উচিত নয়। খেলা অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে খাবেন।
  • অশ্বগন্ধা সেবনকালে এর পাশাপাশি শরীরের শর্করা কমানোর জন্য কোন ওষুধ খাওয়া উচিত নয়। এতে করে আপনার শরীরে প্রচুর পরিমাণে সরকারের অভাব দেখা দিতে পারে। অশ্বগন্ধা নিজেও আপনার প্রাকৃতিক ভাবে শরীরের শর্করা কমিয়ে থাকে।
  • যে সকল মায়েদের দুধ তাদের সন্তান খায়, তাদের অশ্বগন্ধা খাওয়া যাবেনা।

অশ্বগন্ধা সিরাপ হামদর্দ

হামদর্দ এর ঔষধ তৈরিতে অশ্বগন্ধা ব্যবহার করা হয়। হামদর্দ হচ্ছে একটি আয়ুর্বেদিক ঔষধ তৈরীর কোম্পানি। এখানে বিভিন্ন প্রকারের প্রাকৃতিক ভেষজ উপাদান দিয়ে তৈরি করা হয়। হামদর্দ এর সিরাপ হচ্ছে খুবই উপকারী একটি ঔষধ। আর হামদর্দের সিরাপ তৈরিতে অশ্বগন্ধা ব্যবহার করা হয়।

এছাড়াও অশ্বগন্ধার বিভিন্ন ধরনের পাউডার পাওয়া যায় বাজারে। সেগুলো শরীরের জন্য খুবই উপকারী। তাই আপনি চাইলে অশ্বগন্ধা সেবন করার জন্য এই সকল পাউডার কিনে নিতে পারেন। তবে অশ্বগন্ধা কেনার পূর্বে আপনাকে ভালোভাবে বুঝে শুনে কিনতে হবে যেটা অরজিনাল অশ্বগন্ধা কিনা। কারণ অরজিনাল অশ্বগন্ধার উপকারিতা পাবেন।

অশ্বগন্ধা খাওয়ার নিয়ম

অশ্বগন্ধা খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে আমরা অনেকেই জানিনা। তাই অশ্বগন্ধা খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে জানার জন্য আমরা অনেকে চেষ্টা করি। যদি আপনি অশ্বগন্ধা খাওয়ার নিয়ম না জেনে থাকেন তবে আমরা আপনাকে জানাবো। চলুন জেনে নেওয়া যাক অশ্বগন্ধা খাওয়ার নিয়ম:

  • বাজারে বিভিন্ন প্রকার অশ্বগন্ধার সিরাপ, ট্যাবলেট ও পাউডার পাওয়া যায়। আপনি যদি বাজার থেকে অশ্বগন্ধার ট্যাবলেট কিনে থাকেন। তবে আপনি প্রতি রা ট্যাবলেটটি খেয়ে ঘুমাতে পারেন। এছাড়াও অশ্বগন্ধার ক্যাপসুল বাজারে খুবই জনপ্রিয়।
  • অশ্বগন্ধা গুড়া প্রতিদিন রাতে কুসুম কুসুম গরম দুধের সাথে মিশিয়ে খেতে হয়। আপনি চাইলে এর সাথে মধু মিশিয়ে খেতে পারেন। এতে আরো আপনি উপকার পাবেন। অশ্বগন্ধা পাউডারের সাথে মধু ও ঘি মিশিয়ে খেতে পারেন।
  • বাজারে অশ্বগন্ধার শেকরও বিক্রি হয়। অশ্বগন্ধা শেকর পানিতে সিদ্ধ করে তা ছাল ছাড়িয়ে খাওয়া যায়।
  • অশ্বগন্ধা দিয়ে তৈরি বিভিন্ন রকমের সিরাপ রয়েছে তাও আপনি সেবন করতে পারেন।

অশ্বগন্ধার দাম

অশ্বগন্ধার গাছের দাম বিভিন্ন জায়গায় ভিন্ন ভিন্ন হয়ে থাকে। বিভিন্ন এলাকায় অশ্বগন্ধা গাছ খুবই সহজলভ্য। তাই সেখানে এর তেমন একটা দাম নেই। কিন্তু বর্তমানে অশ্বগন্ধা গাছের খুবই অভাব রয়েছে বেশিরভাগ জায়গায়। তাই অশ্বগন্ধার বর্তমানে প্রচুর দাম অনেক জায়গায়।

যেহেতু অশ্বগন্ধা গাছ সম্পূর্ণ ব্যবহার করা যায় না এর শেকর শুকিয়ে ফাঁকি করে বা ট্যাবলেট তৈরি করে বিক্রি করা হয়। তাই এটির ওজন অনেক কমে যায়। ফলের দাম অনেক বেশি রাখা হয়। অশ্বগন্ধার তৈরি ঔষধের দাম হয়তোবা প্রতি কেজি 400 টাকা।

আশা করি আপনারা অশ্বগন্ধা সম্পর্কে সকল বিষয়বস্তু বুঝে গেছেন। যদি অশ্বগন্ধা বিষয়ে আপনার কোন প্রশ্ন মনে থেকে থাকে তবে আপনি আমাদেরকে কমেন্টের মাধ্যমে অবশ্যই জানাতে পারেন। আমরা অতি দ্রুত আপনার কমেন্টের উত্তর দেয়ার চেষ্টা করব। এতক্ষন আমাদের সঙ্গে থাকার জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ।

আরো পড়ুন:

মধু খাওয়ার উপকারিতা এবং সঠিক নিয়ম- শীতে মধু খাওয়ার উপকারিতা

Maimuna Khan

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *